নাসির বিষয় নিয়ে কথা বললেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা।

সেপ্টেম্বরের ১৫ তারিখ থেকে দুবাইতে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপ। আর এশিয়া কাপকে সামনে রেখে তার আগেই ক্যাম্প শুরু করবে বাংলাদেশ দল। আপাতত টাইগারদের লক্ষ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর সুষ্ঠুভাবে শেষ করা। এরপরে দেশে ফেরার পরেই ইদের ছুটিতে চলে যাবে ক্রিকেটাররা। ইদ শেষ করে এই আগস্টেই অনুশীলনে ফিরবে তারা। জাতীয় দলের কোচ স্টিভ রোডস সহ রোডসের বাকী সহকারিরা এরই মধ্যে দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। তবে দলের সঙ্গে ট্রেনিং ক্যাম্প করেননি তারা। আগস্টের শেষে মূলত ট্রেনিং ক্যাম্প করবে তারা। এরপরে এশিয়া কাপের উদ্দেশ্যে একটু আগেভাগেই দুবাইতে রওনা দিবে বাংলাদেশ দল। এই বিষয়ে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন মিডিয়ার সামনে জানান, ‘আগস্টের শেষ সপ্তাহ থেকে ট্রেনিং ক্যাম্প চালু হচ্ছে, চলবে এশিয়া কাপ পর্যন্ত। তাছাড়া আমাদের আরেকটি পরিকল্পনা আছে। এশিয়া কাপ শুরুর বেশ কয়েকদিন আগে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে আমরা দলকে দুবাই পাঠাবো। একইদিনে বোর্ডের এই অভিভাবক কথা বলেছেন সাব্বির-নাসির ইস্যুতেও। বর্তমানে শৃঙ্খলা ইস্যুতে বারবারই নাম ওঠে আসছে এই দুই ক্রিকেটারের। বিশেষ করে সাব্বিরের নামটি উঠে আসছে কয়েকদিন পরপরই।

এসব ক্ষেত্রে কড়া শাস্তির হুমকি দিলেও এখন পর্যন্ত তেমন কিছুই করেনি বিসিবি। তবে ক্রিকেটাররা যদি নিজ থেকে সচেতন না হন তাহলে আজীবন নিষিদ্ধের সম্ভাবনাও থাকছে বলে মনে করেন বোর্ডের এই কর্মকর্তা। এই ইস্যুতে সুজনের বক্তব্য, আপনারা যে নামগুলো শুনছেন সেগুলো আমরাও শুনছি। তারা যদি এমন করতেই থাকে তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির সিদ্ধান্ত আসতে পারে। এমনকি এই ধরণের ক্রিকেটারকে ক্রিকেটের সঙ্গে সম্পৃক্ত রাখা যায় কিনা সেটাও সিদ্ধান্ত নেবে বোর্ড।নিরাপদ সড়কের দাবিতে ছাত্র-ছাত্রীদের আন্দোলন নিয়ে মুখ খুললেন সাকিব, যা বললেন নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি দিচ্ছেন বিনোদনজগতের তারকা থেকে শুরু করে ক্রিকেট মহাতারকারা। এবার সোশ্যাল সাইটে কিশোর-কিশোরীদের আন্দোলন নিয়ে মুখ খুললেন জাতীয় টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার সাকিব আল হাসান। শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণ হয়েছে বলে তাদের ঘরে ফেরার অনুরোধ জানালেন তিনি। বাংলা এবং ইংরেজিতে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘আমি এখন ফ্লোরিডায় আছি। আজ এক গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে আমার তরুণ ফ্যানদের উদ্দেশ্যে কিছু বলতে চাই। গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় দুই স্কুল শিক্ষার্থী দিয়া ও আবদুল করিম নিহত হওয়ার ঘটনায় আমি প্রচণ্ড মর্মাহত ছিলাম। কিন্তু যখন দেখলাম তার সহপাঠী থেকে শুরু করে সারাদেশের ছাত্রছাত্রীরা দোষীদের শাস্তি দাবি ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছে, তখন গর্ববোধ করেছি বাংলাদেশের একজন নাগরিক হিসেবে। দেশে থাকলে আমিই তোমাদের অটোগ্রাফ নেয়ার জন্য চলে আসতাম। তোমাদের সাধুবাদ জানিয়ে বলতে চাই, তোমাদের দাবি কার্যকর হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিহত পরিবারকে আর্থিক সহায়তা ছাড়াও নিরাপদ সড়ক আইন করতে আন্তরিকভাবে কাজ করছেন। ইতোমধ্যে অভিযুক্ত পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল সহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ অবস্থায় তোমাদের কাছে বিনীত অনুরোধ করবো, ক্লাসে ফিরে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে।তোমরা যা করেছ তা এদেশে ইতিহাস হয়ে থাকবে। এ অর্জন সফল হবে তোমাদের পড়ার টেবিলে ফিরে যাওয়ার মাধ্যমে। তোমাদের দাবি পূরণ হয়েছে এবং হচ্ছে। ব‍্যত‍্যয় ঘটলে আমাকে পাবে তোমাদের সাথে। বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডারের এই স্ট্যাটাসে গত ১ ঘণ্টায় আড়াই হাজারের মতো কমেন্ট পড়েছে। যাতে অধিকাংশ ভক্তরাই সাকিবের এই বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


1,124 views