সিরিজে টিকে থাকার মিশনে টাইগাররা

ফ্লোরিডার ফোর্ট লডারডেল মাঠের ২২ গজ ব্যাটসম্যানদের আশাহত করে খুব কম সময়ই। সবশেষ তিন ইনিংসেই হয়েছে দুইশ’র উপরে রান। টি-টুয়েন্টি সংস্করণে সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডটি যুক্তরাষ্ট্রের একমাত্র আন্তর্জাতিক ভেন্যুটির দখলে। আর এই মাঠেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজে টিকে থাকার মিশনে নামছে টাইগাররা।রোববার বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায় শুরু হবে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টুয়েন্টি ম্যাচটি। পিছিয়ে পড়া (১-০) বাংলাদেশের সামনে জয়ের বিকল্প নেই। ফ্লোরিডায় সবশেষ টি-টুয়েন্টি হয়েছিল ২০১৬ সালের ২৭ আগস্ট। সে ম্যাচে ভারতের দেয়া ২৪৫ রানের টার্গেট ৭ বল আগেই তাড়া করে জিতে ইতিহাস গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তার আগের ম্যাচটি ২০১২ সালের জুনে। সেই ম্যাচে আগে ব্যাট করে ২০৯ রান তুলেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। জবাবে ৯ বল আগেই ১৫৩ রানে গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। ফোর্ট লডারডেল মাঠের অতীত পরিসংখ্যান ধারণা দিচ্ছে চার-ছক্কায় ভরপুর রান উৎসবের এক ম্যাচ হতে পারে রোববার। সেন্ট কিটসে প্রথম টি-টুয়েন্টি ম্যাচটিও হয়েছে রানের উইকেটে। যদিও আগে ব্যাট করে বড় সংগ্রহ গড়তে ব্যর্থ হয় বাংলাদেশ। প্রথম ওভারেই তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার ক্যারিবীয় অফস্পিনার অ্যাসলে নার্সকে উইকেট উপহার দিয়ে আসেন। পরে সাকিব-লিটন-মাহমুদউল্লাহর প্রচেষ্টায় লড়াকু সংগ্রহের আশা জাগে। যদিও লোয়ার মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় শেষ অবধি ১৪৩ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ।

ইনিংস শেষ হতেই শুরু হয় বৃষ্টি। ঘণ্টাখানেক পর নতুন করে খেলা শুরু হলে ডাক ওয়ার্থ লুইস মেথডে ক্যারিবীয়দের টার্গেট দাঁড়ায় ১১ ওভারে ৯১ রান। ৯.১ ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে তা টপকে যায় স্বাগতিকরা। ওয়ানডে সিরিজ জয়ের আত্মবিশ্বাস টি-টুয়েন্টিতে ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশ। ব্যাটিং-ব্যর্থতায় হারতে হয়েছে ৭ উইকেটে। যদিও আমেরিকায় ফুরফুরে মেজাজেই আছে টাইগার শিবির। হতাশা দূরে সরিয়ে সেখানকার মাটিতে প্রথমবার ম্যাচ খেলতে নামছে বাংলাদেশ। খেলা দেখতে দেশটির বিভিন্ন জায়গা থেকেও ছুটে আসছেন অনেকে। টাইগার অধিনায়ক সাকিবের ধারণা নিরপেক্ষ ভেন্যুতে গ্যালারির সমর্থনে উজ্জীবিত থাকবে দলের সবাই। এবার ব্যাটিং-বোলিংয়ে তার প্রতিফলন দেখা গেলেই হয়! তাহলে এই কারণে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে দলে ভেড়াল জুভেন্টাস! ইতালির জুভেন্টাস ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে নেওয়ায় অবাক জার্মানির প্রাক্তন ফুটবলার কার্ল হেইঞ্জ রুমেনিগে। এখন বায়ার্ন মিউনিখের সিইও তিনি। তার মতে, ৩৩ বছর বয়সি কোনও ফুটবলারের জন্য বায়ার্ন কখনই এত খরচ করবে না! প্রসঙ্গত, রিয়াল মাদ্রিদ থেকে সিআর সেভেনকে পেতে ১০০ মিলিয়ন ইউরো খরচ করেছে জুভেন্টাস। এই বিপুল অঙ্কের চুক্তিতেই অবাক হয়েছেন রুমেনিগে। তিনি বলেছেন, “আমরা, বায়ার্ন মিউনিখে কোনও ৩৩ বছর বয়সির জন্য এত খরচ করতাম না। এই ট্রান্সফারের নেপথ্যে মার্কেটিংয়ের বড় ভূমিকা রয়েছে। এই চুক্তিই এখনও পর্যন্ত দলবদলের বাজারে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয়েছে। তার কারণও বুঝতে পারছি। রোনালদো গত কয়েক বছরে রিয়ালের হয়ে সবকিছু জিতেছে। পাঁচ বার বিশ্বের সেরা ফুটবলার হয়েছে। ও একজন গ্রেট ফুটবলারও। তবে তা সত্ত্বেও আমি অবাক হয়েছি।  তিনি মনে করেন, ইতালীয় ফুটবলকে প্রচারের আলোয় আনতেই রোনালদোকে দলে ভিড়িয়েছে। “জুভেন্টাসের দৃষ্টিকোণে রোনালদোকে আনার যৌক্তিকতা রয়েছে। ইতালির ফুটবল কিছুটা পিছিয়ে পড়েছিল। এই বিশাল পরিমাণ চুক্তির ফলে বিশ্ব ফুটবলের নজর ফের কাড়তে পারবে বলে আশা করছে জুভেন্টাস। রুমেনিগে যতই বয়সের কথা তুলুন, রোনালদো তুরিনে পা রেখেই বয়সকে পাত্তা না দেওয়ার বার্তা দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, তার মতো বয়সে ফুটবলাররা চিনে খেলতে যান। কিন্তু, তিনি ইতালিতে নতুন চ্যালেঞ্জ নেওয়ার সাহস দেখিয়েছেন। ডাক্তারি পরীক্ষাতে আবার তার শরীর অনেক কম বয়সির মতোই শক্তিশালী বলে ধরা পড়েছে। জুভেন্টাসের হয়ে নতুন মৌসুমের জন্য অনুশীলনেও নেমে পড়েছেন রোনালদো।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


9 views